June 24, 2024, 2:17 am


নিজস্ব প্রতিবেদক

Published:
2024-05-24 08:13:28 BdST

এমপি আনার হত্যাকবে থেকে পরিকল্পনা ও কেন কলকাতায় হত্যা, জানালো ডিবি


দুই থেকে তিন মাস আগে এমপি আনোয়ারুল আজীম আনারকে হত্যার পরিকল্পনা করে তার বাল্যবন্ধু আক্তারুজ্জামান শাহীন! দেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতার কারণে তারা হত্যার পরিকল্পনা বাস্তবায়নে ভারতের কলকাতাকে বেছে নেয়।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) দুপুরে মিন্টো রোডে ডিবি কার্যালয়ে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) অতিরিক্ত কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ এসব তথ্য জানান।

হারুন বলেন, ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনা দীর্ঘদিনের। আনারকে হত্যার পরিকল্পনা করেন তার বাল্যবন্ধু ও ব্যবসায়িক পার্টনার আক্তারুজ্জামান শাহীন। শাহীনের পরিকল্পনায় হত্যার কাজটি করেন পূর্ব বাংলার কমিউনিস্ট পার্টির নেতা আমানউল্লাহ আমান ওরফে শিমুল।

কলকাতায় ১৩ মে বাংলাদেশের সংসদ সদস্য আনারকে অত্যন্ত নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, লাশ গুম করার জন্য পৈশাচিকভাবে মরদেহ টুকরো টুকরো করে বিভিন্ন স্থানে ফেলে দেওয়া হয়েছে। ঘটনায় জড়িত মূল হত্যাকারীসহ গ্রেফতার তিন জন জিজ্ঞাসাবাদে আমাদের এসব তথ্য জানায়।

জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে হারুন আরও বলেন, ঢাকার গুলশান ও বসুন্ধরায় বসে একাধিকবার আলোচনা করেছে হত্যাকারীরা। আনারকে তারা প্রথমে দেশেই হত্যা করতে চেয়েছিল। পরে ডিএমপির ডিবির তদন্ত সক্ষমতার কথা চিন্তা করে তারা দেশের বাইরে হত্যার পরিকল্পনা করে।

পরিকল্পনার অংশ হিসেবে গত মাসের ২৫ তারিখ কলকাতায় তারা বাসা ভাড়া করে। নিহত সংসদ সদস্যের বন্ধু আক্তারুজ্জামান শাহীন, তার বান্ধবী শিলিস্তা রহমান এবং পূর্ব বাংলার কমিউনিস্ট পার্টির নেতা আমান উল্লাহ আমান ওরফে শিমুল ভুইয়া ৩০ এপ্রিল ঢাকা থেকে বিমানে কলকাতায় গিয়ে সেই বাসায় ওঠে। পরিবার নিয়ে থাকার তথ্য দিয়ে বাড়ির মালিকের সঙ্গে চুক্তি করে তারা।

হারুন আরও বলেন, হত্যাকারীরা দুই মাস ধরে সংসদ সদস্যকে নজরদারিতে রাখছিল। কখন তিনি কলকাতায় যান সেই খবর রাখছিল। সংসদ সদস্য বিভিন্ন সময় কলকাতায় যেতেন। সেখানে তিনি দীর্ঘদিন বাস করেছেন। সেখানে তার বন্ধুবান্ধব রয়েছে। তারা এই সুযোগটি কাজে লাগিয়েছে।

তিনি বলেন, এমপি আনার কলকাতায় গিয়ে তার বন্ধু গোপালের বাসায় গিয়ে ওঠেন। তারা জানতো ১২ মে তিনি কলকাতায় যাবেন। হত্যার পরিকল্পনাকারীরা ৩০ এপ্রিল কলকাতায় গিয়ে স্থানীয় দুজনকে ঠিক করে। তারা হলো জিহাদ ওরফে জাহিদ ও সিয়াম। পরিকল্পনাকারী শাহীন হত্যার পর কোন গাড়ি ব্যবহার করা হবে, কাকে কত টাকা দিতে হবে– সেগুলো ঠিক করে ১০ মে দেশে  ফিরে আসেন। এমপি আনার কলকাতায় যাওয়ার পর ১৩ তারিখ ওই বাসায় যান। একটি সাদা গাড়িতে করে ফয়সাল নামের এক ব্যক্তি তাকে নিয়ে যান। যাওয়ার পথে হত্যাকারী আমান উল্লাহ সেই গাড়িতে ওঠে। গাড়িটির চালক ছিল রাজা।

সেখানে (নিউ টাউন এলাকার সঞ্জিভা গার্ডেন) যাওয়ার পর মোস্তাফিজসহ (খুনের সঙ্গে সম্পৃক্ত আরেকজন) তারা বাসায় প্রবেশ করে। বাসায় আগে থেকে জাহিদ ও সিয়াম অবস্থান করছিল। ১৩ তারিখ দুপুর ২টা ৫১ মিনিটে বাসায় প্রবেশ করেন আনার। এর ৩০ মিনিটের মধ্যে হত্যা করা হয় তাকে।

হত্যার পর ঘাতকরা সংসদ সদস্যের মোবাইল ফোন দিয়ে বিভিন্ন ব্যক্তিকে মেসেজ পাঠায়। এরপর তারা মরদেহের হাড় থেকে মাংস আলাদা করে। পরে দুটি ব্রিফকেসে ভরে জিহাদ ও সিয়াম মরদেহ গাড়িতে করে ফেলে দেয় অজ্ঞাতস্থানে যাতে আনারের চিহ্ন না থাকে।

কাজ শেষ করে ১৫ তারিখ আমান উল্লাহ আমান ও শাহীনের প্রেমিকা শিরিস্তা দেশে ফিরে আসে। সবাই ফিরে আসার পর হত্যার মাস্টারমাইন্ড শাহীন বিমানে করে দিল্লি, সেখানে ২ ঘণ্টার ট্রানজিট নিয়ে কাঠমান্ডু যায়। সেখান থেকে অন্য কোনও দেশে চলে যায়।

আক্তারুজ্জামান শাহীন ও আমানউল্লাহ আমান ওরফে শিমুল

হারুন আরও বলেন, হত্যার বিষয়টি প্রকাশ হওয়ার পরে দেখা গেছে তদন্তকারীদের বিভ্রান্ত করতে নিহত সংসদ সদস্যের দুটি মোবাইল ফোন দুই দিকে নিয়ে যায় তারা। এরপর তারা বিভিন্ন জনকে বার্তা পাঠায় ও কল করতে থাকে। এরকমটি করা হয় যাতে তদন্তকারীরা বুঝতে পারেন তিনি জীবিত আছেন।

এমনকি গত ১৮ তারিখে এমপির ব্যক্তিগত সহকারীকে একটি মেসেজ পাঠায়, যাতে বলা হয়– ‘আমি দিল্লি যাচ্ছি। আমার সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী আছেন। দিল্লিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে আমার একটি মিটিং আছে’। এই বার্তাগুলো আমরা যখন পেয়েছি তখনই বুঝতে পেরেছি হত্যাকারীরা নিজেদের আড়াল করতে এগুলো পাঠিয়েছে। হত্যাকারীরা দুটি মোবাইল ফোন কলকাতার বিভিন্ন অঞ্চল ও বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী এলাকায় পাঠায়। সব কিছু মিলিয়ে তারা এই হত্যাকাণ্ডটি করেছে, জানান হারুন।

উল্লেখ্য, আনোয়ারুল আজীম আনার ঝিনাইদহ-৪ (সদর ও কালীগঞ্জ) আসনের সরকারদলীয় সংসদ সদস্য। তিনি ২০১৪, ২০১৮ ও ২০২৪ সালে আওয়ামী লীগ থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। কালীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন তিনি। 

১২ মে তিনি চিকিৎসার কথা বলে ভারতে যান। ১৪ মে থেকে পরিবার ও দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে তার যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। তার ব্যবহৃত হোয়াটসঅ্যাপ নম্বরটিও বন্ধ ছিল। পরে পরিবারের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে যোগাযোগ করা হয়। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে দিল্লিতে বাংলাদেশ দূতাবাস ও কলকাতায় উপদূতাবাসে যোগাযোগ করে খোঁজ নিতে বলা হয়।

এদিকে চিকিৎসার জন্য ১২ মে দুপুরের দিকে দর্শনা-গেদে সীমান্ত দিয়ে ভারতে প্রবেশ করেন আনোয়ারুল আজীম। ওইদিন সন্ধ্যায় কলকাতার অদূরে ব্যারাকপুর কমিশনারেট এলাকার বরাহনগর থানার মণ্ডলপাড়া লেনের স্বর্ণ ব্যবসায়ী ও দীর্ঘদিনের বন্ধু গোপাল বিশ্বাসের বাড়িতে পৌঁছান তিনি। পরদিন ‘বিশেষ প্রয়োজনের’ কথা বলে গোপালের বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আনোয়ারুল আজীম। পরে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়লে কলকাতার বরাহনগর থানায় ১৮ মে লিখিত ‘মিসিং ডায়েরি’ করেন গোপাল বিশ্বাস।

বুধবার (২২ মে) সকালে গোপাল বিশ্বাস স্থানীয় গণমাধ্যমকে জানান, এমপি আজীমকে হত্যা করা হয়েছে বলে কলকাতা পুলিশ তাকে জানিয়েছে। কলকাতার নিউ টাউনের বিলাসবহুল আবাসন ‘সঞ্জিভা গার্ডেনে’ এই এমপি হত্যার শিকার হন।

Unauthorized use or reproduction of The Finance Today content for commercial purposes is strictly prohibited.


Popular Article from FT বাংলা