June 24, 2024, 3:25 am


শাফিন আহমেদ

Published:
2024-05-29 16:58:52 BdST

পূর্ণ মর্যাদায় বাবাকে দাফন করতে চাই: এমপি আনোয়ারুলের মেয়ে


ঝিনাইদহ-৪ আসনের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য (এমপি) আনোয়ারুল আজীম আনারের মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস পূর্ণ মর্যাদায় বাবার দাফন চান। সে জন্য সরকারের কাছে তাঁর মরদেহ উদ্ধারের দাবি জানিয়েছেন।

ভারতের গণমাধ্যম দ্য কুইন্টকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, ‘আমি চাই কর্তৃপক্ষ তাঁর মরদেহ উদ্ধার করুক। অন্তত পূর্ণ মর্যাদায় বাবার দাফন করতে চাই। ’

বাবার সঙ্গে কলকাতায় না যেতে পারার জন্য আক্ষেপ করছেন ডরিন। তিনি বলেন, ‘আমারও যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ভিসা না থাকায় যেতে পারিনি।’

এর আগে এক স্ট্যাটাসে ডরিন লিখেছিলেন, ‘আব্বু, তোমার অনেক কষ্ট হয়েছিল তাই না? তুমি তো আমাকে নিয়ে যেতে চেয়েছিলে, আমিই যাইনি। ভিসা ছিল না আমার। আমি তোমার কষ্টের ভাগ নিতে পারলাম না। তুমি কত কষ্ট পেয়েছ, এটা ভাবলে আমার বেঁচে থাকার ইচ্ছা শেষ। আমি তোমার এত আঘাত, ব্যথা সহ্য করতে পারি না। আল্লাহ কি নেই? এত কষ্ট দিয়ে কোনো মানুষ মানুষকে মারতে পারে বলে আমার জানা ছিল না। আমি বিচার চাই, আমি বিচার চাই। আমি ওদের লাশ দেখতে চাই নির্মমভাবে।’

প্রসঙ্গত, ভারতের কলকাতায় হত্যাকাণ্ডের শিকার ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনারের মরদেহ এখনো উদ্ধার হয়নি। তদন্ত চলছে। কয়েক টুকরো মাংস পাওয়ার কথা জানা গেছে। তবে তা আনারের কি না, এখনো নিশ্চিত নয়। দেশে গ্রেপ্তার আমানউল্লাহ ও কলকাতায় গ্রেপ্তার জিহাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে মরদেহের টুকরা উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

ঘটনা তদন্তে কলকাতায় যাওয়া ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের তিন সদস্যের দলটি গতকালও নিউ টাউনের সঞ্জীবা গার্ডেনসের ফ্ল্যাটটি ঘুরে দেখেছে। তারা তদন্ত নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ সিআইডির সঙ্গে কয়েক ঘণ্টা বৈঠকও করে।

ঢাকার ডিবির দলকে নেতৃত্ব দেওয়া ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (গোয়েন্দা) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ কলকাতায় গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করছি আমানউল্লাহ ও জিহাদের সঙ্গে কথা বলে মরদেহের যেকোনো একটি অংশ উদ্ধার করতে। তবে তাঁরা খুনের যে বর্ণনা দিয়েছেন, তা খুবই ভয়াবহ।’

ঢাকা ও কলকাতায় গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের পুলিশকে দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, এমপি আনোয়ারুল আজীমকে ১৩ মে সঞ্জীবা গার্ডেনসে আক্তারুজ্জামান শাহীনের ভাড়া করা ফ্ল্যাটে খুন করা হয়েছে। এরপর দেহ টুকরা টুকরা করেন পেশায় কসাই জিহাদ। পরে হাড় ও মাংসের টুকরাগুলো ফেলা হয় এক জায়গায় এবং মাথা ও খুলি ফেলা হয় অন্য জায়গায়।

পশ্চিমবঙ্গ সিআইডি সূত্র বলছে, হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদে কসাই জিহাদ বলেছেন, এমপি আজীমের মরদেহের টুকরাগুলো দক্ষিণ ২৪ পরগনার পোলেরহাট থানার কৃষ্ণমাটির বাগজোলা খালে ফেলা হয়েছে। মাথা ও খুলি অন্য জায়গায় ফেলেছেন ফয়সাল নামের এক যুবক। জিহাদকে নিয়ে ওই খালে তল্লাশি চালিয়েও কিছু পাওয়া যায়নি। তবে মরদেহের অংশবিশেষ উদ্ধারের আশা ছাড়েননি সিআইডির কর্মকর্তারা। তাঁরা বলছেন, পলাতক ফয়সালকে গ্রেপ্তার করা গেলে হাড় ও মাথার খুলি পাওয়া যেতে পারে। গতকাল বৈঠকে ঢাকার ডিবির কর্মকর্তাদের এসব কথাই বলেছেন সিআইডির কর্মকর্তারা। ঢাকার ডিবিও এমপির মরদেহের অংশবিশেষ পাওয়ার আশা ছাড়েনি।

ঢাকার তদন্তসংশ্লিষ্ট একটি সূত্র বলছে, রিমান্ডে থাকা আমানউল্লাহ (শিমুল ভুইয়া) ছাড়া অন্য কোনো মাধ্যম থেকে এই হত্যারহস্য বিষয়ে এখনো কিছু জানা যায়নি। আবার আমানউল্লাহও একেক সময় একেক কথা বলছেন। ফলে তাঁর বক্তব্যই যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে।

টানা তিনবারের এমপি ও ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ারুল আজীম ১২ মে চিকিৎসার জন্য কলকাতায় যান। পরে তিনি নিখোঁজ হন।

একপর্যায়ে খবর পাওয়া যায়, চোরাচালানের ২০০ কোটি টাকার সোনা নিয়ে দ্বন্দ্বে ১৩ মে তিনি সেখানে খুন হয়েছেন। এই হত্যার পরিকল্পনা করেন তাঁর যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী বন্ধু আক্তারুজ্জামান শাহীন। এ ঘটনায় ঢাকায় চরমপন্থী নেতা শিমুল ভুঁইয়া ওরফে আমানউল্লাহসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে ডিবি।

Unauthorized use or reproduction of The Finance Today content for commercial purposes is strictly prohibited.


Popular Article from FT বাংলা