January 27, 2022, 4:45 pm


রাজবাড়ী প্রতিনিধি

Published:
2021-12-07 11:02:15 BdST

টানা তিনদিনের বৃষ্টিতে ফসলের ব্যাপক ক্ষতি


জাওয়াদ এর প্রভাবে সৃষ্টি হওয়া নিম্নচাপের কারনে টানা তিন দিনের বৃষ্টিতে রাজবাড়ীতে কৃষি জমির ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। জেলার ৫ টি উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় আমন মৌসুমের পাকা ধান ও শীত কালীন ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

আজ সদরের রামকান্তপুরের কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখা যায় কৃষকদের ক্ষেতে কেটে রাখা পাকা ধান পানিতে ডুবে গেছে। তাছাড়া শীতকালীন পাতা কপি ও ফুলকপির ক্ষেতেও পানি জমে যাওয়ায় দুশ্চিন্তায় পড়েছেন কৃষকেরা।

উড়াকান্দার কৃষক জানান, "আমার দুই বিঘা জমির পিয়াজ নিয়ে চিন্তায় আছি।"

সদরের রামকান্তপুরের কৃষক কলি শেখ জানান, গত পরশুদিন পাকা ধান কেটে জমিতে রেখেছিলেন শুকানোর জন্য। কিন্তু তারপর থেকেই বৃষ্টি হওয়ায় ক্ষেতের সব ধান পানিতে ডুবে গেছে। এতে ধান ঘরে তুলতে পারবেন কিনা এই নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন তিনি।

তিনি আরো জানান, এই ধান দুই একদিনের মধ্যে ঘরে তুলতে না পারলে এখানেই নষ্ট হয়ে যাবে। তিনি বলেন আমার ২ বিঘা জমির ধান নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। সারা মাসের কষ্ট বৃথা যাচ্ছে।

একই এলাকার কৃষক দেনেশ নারায়ন জানান, তিনিও ৩ দিন আগে ধান কেটে আটি বাধার জন্য জমিতে রেখে দিয়েছিলেন কিন্তু টানা বৃষ্টিতে ৩ বিঘা জমির সব পাকা ধান এখন পানির নিচে। সব ধান নষ্ট হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানান তিনি।

এছাড়াও শীতকালীন সবজি চাষী বক্কার শেখ জানান, তার ফুলকপি ক্ষেতে পানি আটকে আছে। এতে গাছগুলো নেতিয়ে পড়ছে গাছগুলো মারা যাবে বলে শংকা তার মধ্যে।

এছাড়াও বালিয়াকান্দি উপজেলাসহ রাজবাড়ীর অনান্য জায়গায়ও কৃষি ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। দেশের পেঁয়াজ উৎপাদনে শীর্ষ জেলাগুলোর মধ্যে তৃতীয় অবস্থানে থাকা রাজবাড়ীতে পেঁয়াজের আবাদ হয়। এ বছর ৩২ হাজার হেক্টর জমিতে পেঁয়াজের আবাদ লক্ষ্যমাত্র নির্ধারণ করা হয়েছে। যার জন্য কয়েক হাজার হেক্টর জমিতে পেঁয়াজের বীজ (দানা) বপন করা হয়েছে। টানা বৃষ্টিতে পেঁয়াজ নিয়েও দুশ্চিন্তায় আছেন কৃষকেরা।

জেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, জেলায় এ বছর প্রায় ৬ হাজার হেক্টর জমিতে শীতকালীন সবজি চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। এরমধ্যে প্রায় ৪ হাজার ৭০০ হেক্টর জমিতে শীতকালীন সবজি চলমান রয়েছে। যেখানে ক্ষতির ব্যাপক শঙ্কা রয়েছে। এছাড়া জেলায় ৪ হাজার হেক্টর জমিতে মুড়িকাটা পেঁয়াজের আবাদ চলমান রয়েছে।

রাজবাড়ী জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসের উপপরিচালক এসএম শহীদ নূর আকবর জানান, বৃষ্টির মধ্যে আমাদের উপ-সহকারী কৃষি অফিসারগণ বিভিন্ন এলাকায় তথ্য সংগ্রহ করেছেন। বৃষ্টির শেষে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানা যাবে। তবে কিছুটা ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে এইটা বুঝা যাচ্ছে।

Unauthorized use or reproduction of The Finance Today content for commercial purposes is strictly prohibited.


Popular Article from FT বাংলা